মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ খবরের প্রতিবাদে কুমারখালীতে সংবাদ সম্মেলন করলেন যাচাই —বাছাই কমিটি

মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ খবরের প্রতিবাদে কুমারখালীতে সংবাদ সম্মেলন করলেন যাচাই —বাছাই কমিটি

বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের তীব্রনিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাই কমিটি।

শামিম হাসান খান, কুমারখালী ( কুষ্টিয়া ) প্রতিনিধি :
১১ই ফেব্রুয়ারী ২০২১
কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে বেসামরিক গেজেটের মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে বাদ পড়া কিছু নামধারী মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের তীব্রনিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাই কমিটি। বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে এই তীব্রনিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। তারা বলেন, যাচাই বাছাইয়ে বাদ পড়া কিছু নামধারী মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে যে অনিয়মের অভিযোগ করেছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।এর তীব্রনিন্দা জানায়।অভিযোগ করা হয়েছে যুদ্ধাকালীন কমান্ডারদের নিয়ে যাচাই বাছাই কমিটি করার বিধান থাকলেও তা করা হয়নি।সে প্রেক্ষিতে জানাতে চাই, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের গত ২০২০ সালের ৭ ডিসেম্বর তারিখের প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়েছে।
দুপুরে থানামোড় সংলগ্ন গড়াই কমপ্লেক্সের দ্বিতীয় তলায় সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাই কমিটির সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা মুন্সি আবু আহসান বরুন।সংবাদ সম্মেলনে যাচাই বাছাই কমিটির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল মতিন ও সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা মোশ চাঁদ আলী, মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ সমিতির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এটিএম আবুল মনসুর মজনু, সাবেক কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা মোকাদ্দেস হোসেন উপস্থিত ছিলেন।
তিনজন বীরমুক্তিযোদ্ধার স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্যে বলা হয়েছে, জামুকা’র বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী কমিটির সভাপতি ও দুইজন সদস্য প্রত্যেকেই ভারতীয় তালিকা এবং লালমুক্তি বার্তায় অন্তর্ভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা। এখানে যাচাই বাছাই কমিটি গঠনে কোন ব্যতয়  ঘটানো হয়নি।এছাড়া যাচাই বাছাইকালে প্রত্যেক ইউনিয়নের যুদ্ধাকালীন কমান্ডার, লালমুক্তিবার্তা ও ভারতীয় তালিকায় অন্তর্ভূক্ত মুক্তিযোদ্ধাগন উপস্থিত ছিলেন।তাদের মতামতের ভিত্তিতেই যাচাই বাছাই কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে।আরো অভিযোগ করা হয়েছে, স্বাক্ষীদের স্বাক্ষর মূল্যায়ন করা হয়নি যা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। সকল স্বাক্ষীদের স্বাক্ষ্য যাচাই বাছাই করে যুদ্ধাকালীন কমান্ডার, লালমুক্তিবার্তা ও ভারতীয় তালিকায় অন্তর্ভুক্ত মুক্তিযোদ্ধাগণের মতামতের ভিত্তিতেই যাচাই বাছাই কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে। বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন এবং বানোয়াট বলেও দৃঢ়ভাবে জানান তারা। গত ৩০ জানুয়ারি হতে ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কুমারখালী উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাই হয়।যাচাই বাছাইয়ে ক, খ ও গ তালিকায় এবারের যাচাই বাছাইয়ে ২১০ জনের মধ্যে বাদ পড়েছেন ৬০ জন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Design & Develop BY Our BD It